বিবাহ ব’হির্ভূত সম্পর্কে জন্ম নেওয়া শিশুকে ‘ডাস্টবিনে’ ফেলে গিয়েছিলেন এক প্রে’মিক জুটি…

ডাস্টবিনে ফেলা শি’শুটি ফিরিয়ে দেওয়া হলো প্রে’মিক-প্রে’মিকাকেবিবাহ বহির্ভূ’ত স’ম্প’র্কে জন্ম নেওয়া শি’শুকে ডাস্টবিনে ফেলে গিয়েছিলেন এক প্রে’মিক জুটি। ডাস্টবিন থেকে

উ’’দ্ধা’র হওয়া ওই শি’শুটির জন্ম দেওয়া প্রে’মিক-প্রে’মিকার সন্ধান মিলেছে এবং তাদের কাছে শি’শুটি ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বগু’ড়ার জলেশ্বরীতলায়।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যায় জলেশ্বরীতলার পৌরসভা লেনের এক গণমাধ্যমকর্মী তার বাসার দরজা খুলে নবজাতকের কা’ন্না শুনতে পান।

পরে তিনি থা’নায় খবর দিলে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পু’লিশ এসে সেখানে থাকা এক ডাস্টবিন থেকে শি’শুটিকে উ’’দ্ধা’র করে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। উ’’দ্ধা’রের সময় শি’শুটির আনুমানিক বয়স ছিল সাতদিন।

জানা গেছে, এক প্রে’মিক জুটির বিবাহবহির্ভূ’ত সন্তান ছিল ওই শি’শুটি। তবে দুই পরিবারের দ্বন্দ্বের কারণে বাচ্চাটি কেউ মেনে নিচ্ছিল না।

বাচ্চাটির বাবাও অস্বীকার করে যাচ্ছিলেন। পরে পু’লিশ অনুসন্ধান চালিয়ে তাদেরকে খুঁজে বের করে শি’শুটিকে তাদের কাছে ফিরিয়ে দেয়।

বগু’ড়া সদর ফাঁ’ড়ির ভা’রপ্রা’প্ত কর্মক’র্তা তাজলিমুর রহমান জানান, শি’শুটিকে উ’’দ্ধা’র করে চিকিৎসা দেওয়া হয় এবং মা-বাবার সন্ধানে কাজ শুরু করে পু’লিশ। তথ্য প্রযু’ক্তি ব্যবহার ও অন্যান্য বি’ষয়গু’লোর উপর নজর দিয়ে খুঁজতে থাকলে এক পর্যায়ে ঐ শি’শুর বাবা-মা’র সন্ধান পাওয়া যায়।

তিনি জানান, শি’শুটির বাবা-মা থা’নায় উপস্থিত হয়ে শি’শুটিকে নিতে আগ্রহ প্রকাশ করে। নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছেন জানিয়ে তারা বলেন, এখন তারা বিয়ে করে সংসার করতে চান।

তাজলিমুর রহমান আরও জানান, একটি সাদা শপিং ব্যাগে শাড়ি দিয়ে মুড়ে রাখা হয়েছিল বাচ্চাটিকে। স’ঙ্গে শি’শুটির খাবার হিসাবে দুধসহ একটি ফিডার দেয়া হয়েছিল। মা’র উদ্দেশ্য ছিল বাচ্চাটি বেঁচে থাকুক আর কেউ কুড়িয়ে পেয়ে নিয়ে যাক। তবে দুই পরিবার এখন তাদের বিয়ে মেনে নিয়েছেন। স্বীকৃতিও দিয়েছেন বাচ্চাটিকে।