free hit counter

শিশুর কো’ষ্ঠকাঠিন্যের স’মস্যায় কী করবেন?

শৈশবেই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় অনেক শিশুকে। এই সমস্যায় ভুগতে শুরু করলে শিশুদের মলত্যাগ ভীষণ কষ্টকর হয়ে ওঠে। এমন সমস্যায় অ’ভিভাবক হিসেবে আপনার

করণীয় কী, তাই নিয়ে বিস্তারিত তথ্য থাকছে আজকের আয়োজনে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেসব শিশু এখনও তরল খাবার খাচ্ছে তাদের এই

সমস্যা দেখা দেয় না। তবে তরল খাবারের স’ঙ্গে স্বাভাবিক ও শক্ত খাবার যারা খাচ্ছে সেসব শিশুদের মধ্যেই এই সমস্যা দেখা দিতে শুরু করে। এমন পরিস্থিতিতে আপনাকে যেসব বি’ষয়ে খেয়াল

রাখতে হবে সেগু’লো হলো- ১. শিশু যদি শক্ত খাবার খাওয়া শুরু করে থাকে তাহলে তাকে আঁশ সমৃ’’দ্ধ খাবার খেতে দিন। শস্য ও আঁশ-

জাতীয় খাবারের পাশাপাশি শাকসবজি আর পর্যা’প্ত ফল খাওয়ার অভ্যাসে শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর হবে। ২. সামান্য বাড়তি তরল শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য ভালো।

তাই সকালে ঘু’ম থেকে উঠেই শিশুকে পর্যা’প্ত পানি পান করতে দিন। এই অভ্যাস হজমশক্তি বৃ’দ্ধি, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর এবং পেট পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

৩. মিষ্টি আলুতে আছে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ। এতে থাকা ভিটামিন এ, বি এবং কার্বোহাইড্রেইট শিশুর বৃ’দ্ধিতে সাহায্য করে। মাঝে মাঝে শিশুর শিশুর ডায়েটে রাখতে পারেন মিষ্টি আলুর ভর্তা।

৪. নাশপাতি, আপেলের রস, আলুবোখারা ও লব’ঙ্গ-গু’ঁড়া মিশিয়ে চাটনি বানিয়ে শিশুকে খেতে দিন। এটা খেতেও মজা এবং শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও সাহায্য করবে।

৫. বড়দের মতো ছোটদেরও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে দই দারুণ কাজ করে। এতে কেবল কোষ্ঠকাঠিন্যই দূর হবে না পাশাপাশি শিশুর হজম শক্তিও উন্নত হবে।

৬. শিশুর জন্য কৌটার তরল দুধ তৈরিতে কখনও খুব পাতলা করা যাব’ে না। আবার শিশুকে গরুর দুধ খাওয়ালে তাতে পানি যোগ করা যাব’ে না। এই ভুলের কারণেও শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দেয়।

৭. শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে প্রতিদিন শিশুর ডায়েটে রাখতে পারেন ইসবগু’লের শরবত।