free hit counter

লো প্রে’শার হলে যে তিন খাবার বেশি খাবেন

সুস্থ থাকার জন্য ব্লাড প্রেশার বা র’ক্তচাপ স্বাভাবিক রাখা জরুরি। কারণ ব্লাড প্রেশার বেড়ে গেলে বা কমে গেলে সেখান থেকে দেখা দিতে পারে

অনেক ধরনের শারীরিক অসুস্থতা। তাই হাই ব্লাড প্রেশার বা উচ্চ র’ক্তচাপে যেমন ভয় থাকে তেমনই লো ব্লাড প্রেশার বা নিম্ন র’ক্তচাপেও একইরকম ভয়।

ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে খাবারের দিকটিতে খেয়াল রাখতে হবে। যদি প্রেশার লো হয়ে যায় তাহলে এমন খাবার খেতে হবে যা ব্লাড

প্রেশার বাড়াতে সাহায্য করে। একটানা দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকলেও ব্লাড প্রেশার লো হয়ে যেতে পারে। তাই তখন এমন খাবার খেতে হবে যা

দ্রুত ব্লাড প্রেশার স্বাভাবিক ’হতে সাহায্য করবে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক লো প্রেশার হলে যে তিন খাবার বেশি খাওয়া উচিত- কফি
হঠাৎ ব্লাড প্রেশার লো হয়ে গেলে সেই অবস্থায় তাড়াতাড়ি কফি পান করে নিতে হবে। কারণ কফির মধ্যে যে ক্যাফেইন উপকরণ থাকে তা ব্লাড প্রেশার বৃ’দ্ধি করবে। ফলে লো প্রেশার থেকে স্বাভাবিক হবে। এতে আপনি দ্রুতই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

বাদাম
বাদাম খাওয়ার অনেক উপকারিতা। এটি কিন্তু কাজ করে ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণেও। রাতে একমুঠো বাদাম পানিতে ভিজিয়ে রাখু’ন। সকালে সেটি ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে পিষে নিন। ব্লাড প্রেশার স্বাভাবিক রাখতে এটি খেতে পারেন। হঠাৎ প্রেশার কমে গেলে এই খাবার খেলে তা দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনে।

পানি
পর্যা’প্ত পানি পান করা অনেক কারণেই জরুরি। এদিকে শরীরে পানির পরিমাণ কমে গেলে প্রেশার লো হবেই। তাই বিশেষজ্ঞরা প্রতিদিন অন্তত দুই থেকে তিন লিটার পানি পান করার পরামর’্শ দেন। শরীরে পানির পরিমাণ ঠিক রাখতে নিয়মিত ডাবের পানি, লেবুর শরবত ইত্যাদি পান করা উচিত।

নর্মাল ব্লাড প্রেশার ১২০/৮০ থাকে। কিন্তু সেটি যদি ৯০/৬০ পৌঁছে যায় তখন দেখা দেয় সমস্যা। এরকমটি হলে তা অবশ্যই চিন্তার বি’ষয়। কারণ লো প্রেশারের কারণে হার্ট, ব্রেন, কিডনি ও ফুসফুসে ক্ষ’তিকর প্রভাব পড়ে।