free hit counter

হ’জমের সম’স্যা কমায় কচু শাক

মাঠে-ঘাটে, ক্ষেতে-বিলে যেখানে সেখানে বিনা যত্নে কচু শাক হয়। অথচ এই কচু শাকের উপকারিতা এবং পুষ্টিগু’ণ প্রচুর। শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে কচু শাক খুবই জনপ্রিয়।

কচু শাক নানাভাবে খাওয়া হয়। তবে কচুপাতা ভর্তা ও তরকারি বেশি জনপ্রিয়। অনেকে আবার ইলিশ, চিংড়ি, ছোট মাছ বা শুটকি মাছ দিয়ে

কচু শাক খেতে পছন্দ করেন। কচু শাক খেলে যেসব উপকারিতা পাওয়া যায়- দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়: কচু ভিটামিন ও খনিজ ভরপুর। শরীরে

ভিটামিন এ-এর অভাবে হওয়া যেকোন রোগের ক্ষেত্রে কচু শাক জাদুর মতো কাজ করে। কচু রাতকানা, চোখে ছানি পড়ার মতো বিভিন্ন সমস্যার ঝুঁকি কমায়। দৃষ্টিশক্তিও বাড়ায়।

হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি মেটায় : শরীরে র’ক্তের পরিমাণ কমে গেলে চিকিৎসকরা কচু শাক খাওয়ার পরামর’্শ দেন কারণ কচু আয়রনের ভাল উৎস। তাই কচু খেলে র’ক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বেড়ে যায়।

মুখ ও ত্বকের রোগ নিরাময় : কচুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন আছে। ভিটামিন এ-এর পাশাপাশি ভিটামিন বি ও ভিটামিন সিও আছে। মুখ ও ত্বকের বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে এই ভিটামিনগু’লি খুব দরকারী।

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায় : কচুশাক খেলে র’ক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে। র’ক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে গেলেই হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়। এছাড়াও কচুতে রয়েছে পর্যা’প্ত পটাশিয়াম। পটাশিয়ামও হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

হজমের সমস্যা কমায় ; কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সাধারণত হজমের সমস্যা থেকেই দেখা যায়। কচু শাকে আছে ফাইবার যা খাবারকে সহজে হজম করতে সাহায্য করে।

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বজায় রাখে : কচু শাকে উপস্থিত আয়রন ও ফলিক অ্যাসিড শরীরে র’ক্তের পরিমাণ বাড়ায়। ফলে শরীরে অক্সিজেনের সংবহন পর্যা’প্ত পরিমাণে হয়। এছাড়াও কচুতে থাকা ভিটামিন কেও র’ক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে।

ক্যানসারের ঝুঁকি কমায় : কচুতে থাকা একাধিক ভিটামিন ও খনিজ শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে সহায়ক। এমনকি নিয়মিত কচুশাক খেলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে যায়।

শরীরে ক্ষত সারায় : ভিটামিন সি ত্বকের ক্ষত সারাতে কার্যকারী। এই ভিটামিন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও বেশ কার্যকরী।