free hit counter

ডা’য়াবেটিস নি’য়ন্ত্রণে সহায়ক ‘কুমড়ার’ বীজ

গোটা বিশ্বেই কুমড়া জনপ্রিয়। এটি খেতে যেমন সুস্বাদু, তেমনই স্বাস্থ্যের জন্যও সমান উপকারী। এটি রান্না করা সহজ, আবার হজমও তাড়াতাড়ি হয়। তবে কুমড়ো খেলেও এর বীজ

ফেলে দেন। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না সবজির মতো এর বীজও সমান উপকারী। নিয়মিত কুমড়ার বীজ খেলে যেসব স্বাস্থ্য উপকারিতা

পাওয়া যায়- মানসিক চাপ কমায় : বর্তমানে মানুষের কাজ, স’ঙ্গে পারিবারিক ও আর্থিক চাপ অনেকটাই বেডেছে। আর সেই স’ঙ্গেই বেড়েছে দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপ। মানসিক স্বাস্থ্যের

উন্নতির জন্যই কুমড়ার বীজ বিশেষভাবে উপকারী। এতে থাকা ম্যাগনেসিয়াম মনকে শান্ত রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া কুমডার বীজে থাকা জিঙ্ক এবং ভিটামিন বি-এর মাধ্যমেও মানসিক চাপ কমে।

নিদ্রাহীনতা দূর হয় : অনেকেই নিদ্রাহীনতা বা কম ঘু’মের সমস্যায় ভোগেন। প্রচুর চেষ্টা করেও পর্যা’প্ত ঘু’ম হয় না অনেকের। এ ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে কুমড়ার বীজ। নিয়মিত এই বীজ খেলে নিদ্রাহীনতা দূর হয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় : করো’নাকালের পর থেকে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ওপর বিশেষ করে জোর দেওয়া হচ্ছে। কুমড়ার বীজে যে ভিটামিন ই পাওয়া যায় তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে : যারা ডায়াবেটিসে ভুগছেন তারা কুমড়োর বীজ খেতে পারেন। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে যা টাইপ ২ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে বেশ কার্যকরী। কুমড়ার বীজে থাকা ভিটামিন সি র’ক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।