ঘরে যতো মশাই থাকুক না কেন ১ বার জ্বা’লালে সব মশা দৌড়ে পালাবে..।মশা দূর করার ঘরোয়া উপায়

মশা এমন একটি প্রাণী যার উপস্থিতি আমা’দের জীবনকে নাজেহাল করে দেয় মশার কারণে দেখা দিতে পারে নানা রকমের অসুখ-বিসুখ । মশা নিয়ে আসে নানা রকমের ব্যাকটেরিয়া জীবাণু ।তার সাথে

সাথে মশা এমন অনেক প্রজাতি আছে যা মানুষের মৃ’ত্যুর কারণ হয়ে যায় । ঐসকল ক্ষ’তিকর প্রজাতির মশার দ্বারা মানুষের অনেক ক্ষ’তি

সাধন হয়। ওই জাতির মশার আ’ক্রমণের ফলে হয়ে যায় মানুষের অকাল মৃ’ত্যু। মশার থেকে আমর’া সবাই নিস্তার পেতে চাই। কিন্তু মশা ছাড়া

আমা’দের দৈনন্দিন জীবন যেন চলেই না। তার কাছে যত দূরে সরতে চাই সে যেন আরো ওত পেতে থাকে আমা’দের কাছের আসার জন্য।

মশা এমন একটি প্রাণী যার বিস্তার ঠেকানো সম্ভব না। কিন্তু কিছুটা হলেও এর বিস্তার রোধ করা যাব’ে। কিছুটা হলেও এর থেকে মুক্তি পাওয়ার

ফর্মুলা রয়েছে ।এ ফর্মুলা গু’লো ব্যবহার করলে মশা থেকে কিছুটা হলেও নিস্তার পাওয়া যাব’ে ।এই ফর্মুলাটি ব্যবহার হলে মশা দৌড়ে পালাবে। আমা’দের ঘরে দেখা যাব’ে না এই মশাকে।

সন্ধ্যা হলে যেন আমা’দের ঘর বাড়ি মশা দিয়ে আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। এই মশা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আমা’দের কিছু ফর্মুলা মেনে চলতে হবে ।যে ফর্মুলা গু’লো মেনে চললে আমা’দের ঘর বাড়ি মশা মুক্ত থাকবে। আর আমর’া বাড়ি বেঁচে যাব’ নানারকম অসুখ-বিসুখ থেকে। চলুন জেনে নেই কিভাবে এই ফর্মুলাটি তৈরি করতে হবে।
ফর্মুলাটি তৈরিকরণঃ এজন্য প্রথমে নিয়ে নিতে হবে আমা’দের একটি বাটি। তার সাথে নিয়ে নিতে হবে একটি রসুন। রসুন যেভাবে আমা’দের রান্নার জন্য দরকারি তেমনি আমা’দের শরীরের জন্য উপকারী। তিন থেকে চারটি রসুনের পিস নিয়ে রসুনের পেস্ট করে নিতে হবে।

পেস্ট করা রসুন গু’লোকে একটি মাটির বাটিতে নিতে হবে এরপর এর মধ্যে নিতে হবে একটি তেজপাতা। তেজপাতার পাতাটি কেও ছোট ছোট করে কে’টে নিতে হবে। কে’টে নেওয়ার কাজ শেষ হয়ে গেলে কাঁটা তেজপাতা গু’লো মাটির সে বাটিতে দিতে হবে। এরপর সেখান দিয়ে দিতে হবে কর্পূর গু’ঁড়ো।

কর্পূর কে ভালোভাবে গু’ঁড়ো করে দিয়ে দিতে হবে সে মাটির বাটিতে। এরপর এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে দেশি ঘি। ঘি দেওয়া হয়ে গেলে একসাথে করে এগু’লোকে নেড়ে নিতে হবে। আপনি চাইলে এগু’লোকে হাত বা চামচ দিয়ে নেড়ে নিতে পারেন। মিশানো হয়ে গেলে একটি বিয়ার সাহায্যে উপাদান থেকে আগু’ন দিয়ে জ্বা’লানোর চেষ্টা করুন।

চেষ্টা করবেন ঘরের এক কোনায় এ কাজটি করার ।আগু’ন জালানো শেষ হয়ে গেলে মিশ্রনটিকে ১০ থেকে ১৫ মিনিট এভাবে রেখে দিন । মিশ্রণটির ধোয়াতে আপনার ঘরে একটি মশাও থাকতে পারবেনা। সব মশা এই ধোয়ার গন্ধে গন্ধে পালিয়ে যাব’ে।

আশা করি এই ফর্মুলাটি ব্যবহার করে আপনাদের ঘরে একটি মশা থাকবে না। মশাগু’লো আপনার ঘর ছেড়ে পালাবে । ক্ষ’তিকর মশাগু’লো আসতে পারবেনা ।আপনার ঘরে আর এসে থাকলেও এই মিশ্রণটি ধোঁয়ায় পালিয়ে যাব’ে ।আপনার স্বাস্থ্য সুরক্ষা রাখবে এবং আপনাকে সুরক্ষা রাখবে ডে’ঙ্গু’ ম্যালেরিয়া মত মর’ণঘা’তী থেকে।