বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগে ঘু’স গ্রহণের অভি’যোগে মালয়েশিয়ায় ৮ কর্মকর্তা গ্রে’ফতা’র

ঘু’ষ গ্রহণের অ’ভি’যোগে বাংলাদেশি ও নেপালি শ্র’মিক নিয়োগের জন্য মালয়েশিয়া সরকারকে সেবা প্রদানকারী আইটি কোম্পানি ‘বে’স্টিনেট’র প্রধান নির্বাহী কর্মক’র্তাসহ (সিইও) মোট ৮ কর্মকর্তাকে

গ্রে’’ফ’তা’র করেছে মালয়েশিয়ার দু’র্নী’তি দমন কমি’শন (এমএসিসি)। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) মালয়েশিয়ার সংবাদপত্র দ্য স্টার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদেশি

শ্রমিকদের জন্য কোটা অ’র্জনে নিয়োগকর্তা বা এজেন্টদের সহযোগিতা করতে ঘু’স গ্রহণের অ’ভি’যোগে বুধবার (৩ আগস্ট) তাদের গ্রে’ফতার করা হয়।

গ্রে’’ফতা’রদের মধ্যে পাঁচজন পুরুষ ও তিনজন না”রী। তাদের বয়স ৪০ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে বলে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। তারা প্রতি শ্রমিকের জন্য বাংলাদেশি টাকায় ১৭ হাজার থেকে ৩২ হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়েছেন বলে অ’ভি’যোগ উঠেছে। ওই প্রতি’বেদনে আরও বলা হয়, গত মে মাস থেকে ২৯ জুলাই পর্যন্ত মোট ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৮৬১টি আবেদন প্রক্রিয়া করেছে বেস্টিনেট।

রিক্রুটিং এজেন্টদের মূল হো’তা হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশি বংশো’দ্ভূ’ত মালয়েশিয়ার দাতো মোহা’ম্ম’দ আমিনকেও এমএসিসি গ্রে’’ফ’তার করেছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। তবে আনুষ্ঠা’নিকভাবে বি’ষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। জানা গেছে, বেস্টিনে’ট ফরেন ওয়ার্কার্স সেন্ট্রালাইজড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এফডব্লিউসিএমএস) নামে পরিচিত একটি ব্যবস্থা’পনা দেখভাল করে থাকে। এই সি’স্টেমটি ২০১৬ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলা’দেশি শ্রমি’ক নিয়োগের জন্যও ব্যবহার করা হয়েছিল। কিন্তু এই কাজে প্রতি শ্রমিকের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত নেওয়ার অ’ভিযোগে মালয়ে’শিয়া সরকার এই নিয়োগ স্থ’গিত করে।

সেসময় বাংলাদেশ থেকে শ্র’মিক নি’য়ো’গের জন্য মালয়েশিয়া সরকার ১০টি রিক্রু’টিং এজেন্সির একটি সি’ন্ডি’কে’টকে অনুমতি দেয়। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগের জন্য দুই দেশের সরকার কাজ করলেও এই কাজে মালয়েশিয়া সর’কার কর্তৃক প্র’স্তাবিত ২৫টি রিক্রুটিং’ এ’জেন্সির সি’ন্ডিকে’শনের অ’ভিযোগ আছে। এই কার’ণে বুধবারে’র ঘটনা’কে তাৎপ’র্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।