আপনার কড়ে আঙুলে এই লক্ষণটি রয়েছে..? তাহলে নি.শ্চিন্ত থাকুন নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে !

কেউ চাইলে, নিজের কড়ে আঙুলের দিকে তাকিয়ে নিজেই জেনে নিতে পারেন নিজের ভবি’ষ্যৎ সম্পর্কে? কীভাবে? আসুন, জেনে নিই। লক্ষণশাস্ত্র এমন একটি বিদ্যা যা দে’হের বিভিন্ন বাহ্যিক

বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে মানুষের অতীত ও ভবি’ষ্যৎ নিয়ে চর্চা করে থাকে। এই বিদ্যার ব্যাখ্যা অনুযায়ী, কোনও মানুষের শারীরিক গঠনের বিশ্লেষণের মাধ্যমেই জানা সম্ভব তার ব্যক্তিত্ব, ভূ’ত ও ভবি’ষ্যৎ। এই বিদ্যা বলে, কড়ে আঙুলের

গঠনেও নিহিত থাকে একজন মানুষের ব্যক্তিত্ব ও ভবি’ষ্যৎ। এবং কেউ চাইলে, নিজের কড়ে আঙুলের দিকে তাকিয়ে নিজেই জেনে নিতে

পারেন নিজের ভবি’ষ্যৎ সম্পর্কে? কীভাবে? আসুন, জেনে নিই। অন্য আঙুলের মতো কড়ে আঙুলেও থাকে তিনটি ভাগ (ছবির দিকে

তাকান)। এই ভাগগু’লিকেই বিশ্লেষণ করতে হবে। প্রথমেই লক্ষ্য করুন কড়ে আঙুলের তিনটি ভাগের কোনটির দৈর্ঘ্য কেমন। এবার আঙুলের ডগার উপরের দিক থেকে তিনটি অংশকে চিহ্নিত করা যাক যথাক্রমে ১,২,৩ নামে।

এবার আসা যাক বিশ্লেষণে— ১. যদি ১ নম্বর অংশটি দীর্ঘ হয়: যদি আঙুলের উপরের ভাগটি অন্য অংশের চেয়ে বড় হয় তাহলে আপনি খুব সহজেই অন্যদের মন জয় করে নিতে পারেন। আপনার ভাষাগত দক্ষতা অসাধারণ, এবং আপনার পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাও অতুলনীয়।
২. যদি ২ নম্বর অংশটি দীর্ঘ হয়: তাহলে অন্যদের সেবা ও সাহায্য করার মানসিকতা আপনার মধ্যে রয়েছে। ডাক্তার এবং নার্সদের মধ্যে সাধারণত এই অংশটি দীর্ঘ হয়।

৩. যদি ৩ নম্বর অংশটি দীর্ঘ হয়: এই ধরনের মানুষেরা সৎ ও সত্যবাদী হন। এঁদের কথা বলার দক্ষতা থাকে, পাশাপাশি মানুষের স’ঙ্গে মেলামেশাতেও এঁরা পটু হন। ৪. যদি ১ নম্বর অংশটি সবচেয়ে ছোট হয়: এই ধরনের মানুষেরা হন নার্ভাস প্রকৃতির, এবং মানসিকভাবে দুর্বল। পাশাপাশি বন্ধুবান্ধবরা এঁদের পছন্দ করেন না।

৫. যদি ২ নম্বর অংশটি সবচেয়ে ছোট হয়: এমন‌টা হলে আপনি জেদী এবং কিছুটা আলসে প্রকৃতির। জীবনে কোনওরকম পরিবর্তনের স’ঙ্গে মানিয়ে নিতে আপনার অসুবিধা হয়।

৬. যদি ৩ নম্বর অংশটি সবচেয়ে ছোট হয়: আপনি সহজ-সরল এবং বিশ্বা’সী। আপনার একটু সতর্ক থাকতে হবে যে, কেউ যাতে আপনাকে চট করে বোকা বানাতে না পারে।