প্রেমের টানে আসা ফাতেমাও ফেরেন নিজ দেশে, বিয়ে করতে বললেন স্বামীকে।

২০১৪ সালে কর্মসংস্থানের উদ্দেশে সি’ঙ্গাপুরে যান পাভেল (২৭)। সেখোনে ফাতেমা নামের এক তরুণীর স’ঙ্গে পরিচয় হয়। সেই পরিচয থেকে প্রণয়।

এরপর পাঁচবছর পরে দেশে ফিরে আসেন পাভেল। তার প্রেমের টানেই ওই তরুণীও বাংলাদেশে আসেন। ধুমধাম করে বিয়েও হয় পাভেল-ফাতেমা’র।

এরপর ভালোবাসার গল্পটা বেশি দূর এগোয়নি। মাত্র ২৬ দিনের সংসার ফেলে সি’ঙ্গাপুর চলে যান ফাতেমা। পাভেলের কাছে ফিরে আসার প্রতিশ্রুতি দিলেও সে সময়

করো’নাভাইরাসের লকডাউনে ফিরতে পারেননি। পরে স্বামীকে নতুন করে জীবন শুরু করতে বলেন ফাতেমা। এমন ঘটনা ঘটেছে কুষ্টিয়ার কুমা’রখালী উপজে’লার চাঁদপুর ইউনিয়নের জু’ঙ্গলী গ্রামের লিয়াকত হোসেনের ছেলে পাভেলের স’ঙ্গে।

পাভেলের পিতা লিয়াকত আলী জানান, পাভেলের স’ঙ্গে সি’ঙ্গাপুরের তরুণী ফাতেমা’র ভালোবাসার সম্পর্ক হলে ছেলে দেশে আসার পর ফাতেমাও বাংলাদেশে আসেন।

পরে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি পারিবারিকভাবে সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ করে তাদের বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের ২৬ দিন পর আবারও ফাতেমা সি’ঙ্গাপুরে চলে যান। করো’নাভাইরাসের কারণে সি’ঙ্গাপুরে লকডাউন শুরু হলে ফাতেমা আর বাংলাদেশে ফিরতে পারেনি।

পাভেলের পিতা আরও জানান, সি’ঙ্গাপুরে ফেরত যাওয়ার কিছু দিন পরেই ফাতেমা পাভেলকে জানিয়ে দেয় তার অন্যত্র বিয়ে হয়ে গেছে, বাংলাদেশে আর ফিরবে না।

পাভেল যেন নতুন করে জীবন শুরু করে। তিনি আরও জানান, ফাতেমা জানিয়ে দেওয়ার বছরখানেক পরেই পাভেলকে আমর’া আবারো বিয়ে দেই। বর্তমানে পাভেল তার সংসার নিয়ে ভালো আছে। পাভেলের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

পাভেলের স্বজনরা জানান, কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে ২০১৪ সালে পাভেল সি’ঙ্গাপুরে যায়। সেখানে কর্মসূত্রে পরিচয় হয় ফাতেমা’র স’ঙ্গে। তিন বছরের পরিচয়ের

এক পর্যায়ে সম্পর্কে জড়ান তারা। পাভেল দেশে চলে আসলে ফাতেমাও তার সন্ধানে সি’ঙ্গাপুর থেকে ছুটে আসেন কুষ্টিয়ায়। পরে পাভেলের

পরিবার ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি তাদের বিয়ে দেন। তবে এ বি’ষয়ে পাভেল স’ঙ্গে কথা বলতে চাইলে সে কোনও মস্তব্য করতে রাজি হয়নি।